কি দিয়েছেন বোস আমাদের?


প্রযুক্তির সাথে বেঁচে থাকবেন অমর বোস

প্রযুক্তির সাথে বেঁচে থাকবেন অমর বোস

১২ জুলাই ২০১৩ এই বিশ্ব হারিয়েছে অমর গোপাল বোসকে কিন্তু আমরা তার অবদানের কথা বহু বছর ধরে মনে রাখব। বোস ৪৫ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের এম.আই.টিতে সফলভাবে শিক্ষকতা করেছেন। তিনি তার পাঠদান এবং শ্রুতিবিদ্যা ,ইলেক্ট্রনিক্স ও ব্যবসা দ্বারা শত শত শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণীত করেছেন। এম.আই.টির পরিধির বাইরেও বোস একটি জনপ্রিয় এবং স্বনামধন্য ব্র্যান্ডের নাম। বোস কোম্পানি নামে তিনি একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন যা কোন উৎস থেকে শব্দ শোনার উন্নত পদ্ধতি নিয়ে কাজ করে। এটি মূলত মিশ্রিত বা ব্যাকগ্রাউন্ড শব্দ দূর করে মূল শব্দ শোনার একটি পদ্ধতি।

অমর গোপাল বোসের অবদান বোস কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠা। ১৯৬০ সালের মধ্যবর্তী সময়ে এম.আই.টির ছাত্র হওয়াতে আমি নিজেকে খুবই ভাগ্যবান মনে করি। এই সময় বোস কনসার্ট হলের শব্দ নির্ণয় ও আমাদের শব্দ শ্রবণ পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছিলেন। তিনি দেখেন যে আমাদের কান ও শ্রবণ অনুভূতি সরাসরি উৎস থেকে উৎপন্ন শব্দ এবং আশেপাশের প্রতিফলিত শব্দের একটি জটিল মিশ্র শব্দ তৈরি করে। এই আবিষ্কারের ফলস্বরূপ বোসের প্রথম পণ্য ৯০১ স্পিকার সিস্টেম। এটি ছোট ছোট সস্তা স্পীকারের বিন্যাস যা উৎসের উৎপন্ন শব্দ এবং আশেপাশের প্রতিফলিত শব্দকে শৃঙ্খল করে। বোস কর্পোরেশন একটি বিলিয়ন ডলারের উদ্যেগ যা বিভিন্ন প্রকার শব্দযন্ত্রের ক্ষেত্রে সমগ্র বিশ্বে তাদের সুনাম অর্জন করেছে। এই প্রতিষ্ঠানের পণ্যের দাম বেশি হলেও মান এবং দক্ষতার ক্ষেত্রে বাজার দখল করেছে। বোসের যে প্রোডাক্টগুলো আমি কিনেছিলাম তা এখনও ব্যবহার করছি। আমি স্বীকার করি প্রথমে আমি বোসের পণ্য ক্রয় করি নি। এম.আই.টিতে যখন আমি স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষে তখন ছোটখাটো একটি বিজ্ঞান প্রকল্প নিয়ে কাজ করেছিলাম, যা তিন বছর পর আমার স্নাতোকত্তর শ্রেণীর থিসিসের বিষয় ছিল। প্রকল্পটি ছিল চারদিকে শব্দ নিয়ন্ত্রক বেষ্টিত বিশেষ কক্ষের সংবেদনশীল শব্দ পরিমাপ নিয়ে। মাইক্রোফোন ও স্পীকারের দক্ষতা নির্ণয়ে এমন কক্ষের প্রয়োজন ছিল। বোস এবং অন্যান্য প্রসিদ্ধ শব্দবিজ্ঞানীর গবেষণায় ব্যবহৃত এমন পরিবেশের জন্য আমি একটি প্রসিদ্ধ সমাধিক্ষেত্রে যায়। রাত্রিকালীন ঘন্টার পর ঘন্টা লোকজন থেকে দূরে অবস্থানকালে আমি জানতে পারি একদল এম.আই.টি’র শিক্ষার্থী বিখ্যাত ৯০১ স্পীকারের আদলে তাদের নিজের মত একটি নঁকশা তৈরি করেছে। এছাড়া তারা এই নঁকশার যন্ত্রটিকে বাস্তবে রূপ দিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিল। স্থানীয় ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্রাংশের দোকান এবং এম.আই.টির উড-ওয়ার্কিং দোকানের সহযোগীতায় তারা এর প্রতিলিপি তৈরি করতে সমর্থ্য হয় (আমি অনুধাবন করলাম যে এর সর্বোত্তম কপি তৈরি করেছিলেন বোস )। বোসের মতে নতুন নতুন পণ্যে অধিক বিনিয়োগের (যেমন আর এন্ড ডি) দ্বারা তার প্রতিষ্ঠান বাজারে শক্ত অবস্থান দখল করতে সমর্থ্য হয়েছে। তিনি বিশ্বাস করতেন আর এন্ড ডি ব্যায় চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে না যদি তার প্রতিষ্ঠান জনপ্রিয় না হয় (যেমন প্রতিদিনের পূজিবাজারে তাদের প্রাপ্তি)। কারও মনে প্রশ্ন আসতে পারে, ব্যাবসা পদ্ধতি উদ্ভাবনের এটা কি কোন গুরুত্মপূর্ণ নিয়ম?
তাৎক্ষণিক কোন উত্তর না দিয়ে বাজার অনুযায়ী একজন উদ্ভাবক উপযুক্ত মনে করলে তার অর্থ স্বাধীনভাবে আর এন্ড ডি তে বিনিয়োগ করতে পারেন। অন্যদিকে বাজার থেকে একজন ব্যবসায়ী তারে বিনিয়োগের উপর ভিত্তি করে লাভবান হন। অ্যাপল কোম্পানির দ্বিতীয় ধাপে স্টিভ জবসের নেতৃত্ব এমন একটি উদাহরণ। পণ্য উৎপাদন এবং ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে এই দুই কোম্পানির চিত্র একই।
আমরা মনে করি অমর বোস ছিলেন একজন বিজ্ঞানী, শিক্ষক ,উদ্ভাবক এবং ব্যবসায়ী। তার কাজ দ্বারা তিনি অসংখ্য শিক্ষার্থী, গবেষণা ও ব্যবসায়ী সম্প্রদায় এবং আমরা যারা তার শব্দ শুনছি তাদের হৃদয় জয় করেছেন।

ফ্রেড ডাইলা, নির্বাহী পরিচালক এবং সি.ই.ও , আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব ফিজিক্স

উত্তর প্রদান করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s